মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০১৮ || সময়- ১:১০ pm
শুরু হচ্ছে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ; প্রথম দিনই মাঠে নামবে বাংলাদেশ


ইনফরমেশন ওয়াল্ড খেলার মাঠ নিউজ ডেক্স
চট্টগ্রাম:----মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে, ১১ জানুয়ারি ২০১৮ (বাসস/এএফপি) : নিউজিল্যান্ডে আগামী শনিবার (শুক্রবার ভোর রাতে) থেকে শুরু হচ্ছে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ১২তম আসর। উদ্বোধনী দিনই মাঠে নামছে আটটি দল। স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দিনের অন্য তিন ম্যাচে লড়বে বাংলাদেশ-নামিবিয়া, আফগানিস্তান-পাকিস্তান ও জিম্বাবুয়ে-পাপুয়া নিউ গিনি। নিউজিল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায়। বাকী অন্য তিনটি খেলা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর ৩টা ৩০ মিনিটে।
মোট ১৬টি দেশকে চার গ্রুপে বিভক্ত করে শুরু হচ্ছে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। ‘এ’ গ্রুপে রয়েছে- নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা ও কেনিয়া। ‘বি’ গ্রুপে রয়েছে- ভারত, অস্ট্রেলিয়া, জিম্বাবুয়ে ও পাপুয়া নিউগিনি। ‘সি’ গ্রুপে রয়েছে- বাংলাদেশ, ইংল্যান্ড, নামিবিয়া ও কানাডা এবং ‘ডি’ গ্রুপে রয়েছে পাকিস্তান, শ্রীলংকা, আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তান।
এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ তিনবার করে শিরোপার স্বাদ নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া ও ভারত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দু’বার চ্যাম্পিয়ন হয় পাকিস্তান। আর একবার করে সেরার মুকুট পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ড। এবার করে ফাইনালে উঠে রানার-আপ হয় শ্রীলংকা ও নিউজিল্যান্ড।
যুবদের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সেরা অর্জন তৃতীয় স্থান। এখন পর্যন্ত ১০আসরে অংশ নিয়েও ফাইনালে উঠতে পারেনি বাংলাদেশের যুবারা। ২০১৬ সালে গত আসরে নিজেদের মাঠে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলেছে বাংলাদেশ। এবার অতীতের চেয়ে ভালো ফল করার প্রত্যাশায় গত ২৫ ডিসেম্বর রান পৌনে একটায় দেশ ছাড়ে সাইফ হাসানের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ দল।
দেশ ছাড়ার আগে অধিনায়ক সাইফ হাসান বলেছিলেন, ‘বিশ্বকাপ অনেক বড় একটি মঞ্চ, এই ধরনের মঞ্চে চাপ অনেক বেশি থাকে। তবে দলের সবাই যদি চাপকে দূরে রেখে নিজেদের সেরা পারফরমেন্স করতে পারে তবে অবশ্যই ভালো ফল করা সম্ভব। আমরা ধাপে ধাপে এগোতে চাই। আমাদের লক্ষ্য এবারের আসরে এক নম্বর দল হওয়া। আগের আসরগুলোর চেয়ে ভালো পারফরমেন্স করা।’
নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন বাংলাদেশের পক্ষে নয়। পাশাপাশি দলের অন্যান্য খেলোয়াড়দেরও নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে খেলার কোন অভিজ্ঞতাও নেই। তবে প্রস্তুতি ভালো হওয়ায় ভালো পারফরমেন্সের আশা সাইফের, ‘নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন আমাদের জন্য বেশ কঠিন। তবে আমাদের প্রস্তুতি ভালো আছে। আমাদের সমন্বয় বেশ ভালো। এটাই আমাদের মূল শক্তি। এই শক্তি দিয়েই আমরা ভালো পারফরমেন্স করতে মুখিয়ে আছি।’
বাংলাদেশ সেরা হবার প্রত্যাশায় থাকলেও, এবারের আসরে ফেভারিটের তকমা নিয়ে খেলতে নামবে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গেল কয়েক বছর যাবত এই পাঁচটি দেশের যুবারা দুর্দান্ত পারফরমেন্স করে চলেছে।
শিরোপা ধরে রাখার মিশনে নামবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাংলাদেশের মাটিতে গত আসরের ফাইনালে ভারতকে ৫ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করে ক্যারিবীয়রা। ফাইনালে উঠেও চতুর্থবারের শিরোপার স্বাদ নিতে না পারার কষ্ট এখনও সঙ্গী ভারতের। তারা চাইবে গত আসরের দুঃখ ভুলে আবারো শিরোপার আনন্দে মেতে উঠতে। এরআগে ২০০০, ২০০৮ ও ২০১২ সালে যুব বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছিলো ভারত।
সর্বশেষ ২০১০ সালে যুব বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করেছিলো অস্ট্রেলিয়া। ২০১২ সালের আসরে ফাইনালে উঠলেও শিরোপা জয় করতে পারেনি তারা। ভারতের কাছে ৬ উইকেটে হেরে প্রথমবারের মত রানার-আপ হয় অসিরা।
২০০৪ ও ২০০৬ সালে পরপর শিরোপা জয় করেছিলো পাকিস্তান। এরপর ২০১০ ও ২০১৪ সালে ফাইনালে উঠলে শিরোপা বঞ্চিত হয় তারা। তাই শিরোপা খড়া ঘোচানোর লক্ষ্য নিয়ে এবার মাঠে নামছে পাকিস্তান।
১০টি আসরে অংশ নিয়েও শিরোপা স্বাদ পেতে ২০১৪ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ২০০২ ও ২০০৮ সালে টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠলেও, রানার-আপ হয়েই ক্ষান্ত থাকতে হয় প্রোটিয়াদের। অবশেষে দুবাইয়ে ২০১৪ সালের আসরে পাকিস্তানকে ৬ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মত শিরোপার স্বাদ নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা।
আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে যুব বিশ্বকাপের ফাইনাল।