রবিবার ১৯ নভেম্বর ২০১৭ || সময়- ১২:৩২ am
দুই মন্ত্রীর পদ আইন ও সংবিধানে ওভাবে কিছু বলা হয়নি: ড. কামাল

ইনফরমেশন ওয়াল্ড আইন নিউজ ডেক্স
চট্টগ্রাম:-----সংবিধান রক্ষায় শপথ ভঙ্গ করেছেন দুই মন্ত্রী- সুপ্রিম কোর্টের এমন রায়ের পর তাদের পদ থাকবে কিনা এ বিষয়ে সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন, আইন ও সংবিধানে এ ব্যাপারে ওইভাবে কিছু বলা হয়নি। এটা জনমতের ওপর নির্ভর করে। তারা থাকতে পারবে কি-না, জানতে হলে জনমত যাচাই করেন।
বৃহস্পতিবার (০১ সেপ্টেম্বর) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।
ওই দুই মন্ত্রী তাদের পদে থাকা উচিত কি-না, এ বিষয়ে ড. কামাল হোসেন আরও বলেন, আমি বলবো না। রাষ্ট্রে এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আছে।
তবে এ বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম।
প্রাইভেট ইউনিভাসির্টিজ এলএলএম ল’ইয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন আইন পেশায় পঞ্চাশোর্ধ আইনজ্ঞদের সংবর্ধনার আয়োজন করে।
অনুষ্ঠানে সুপ্রিম কোর্টের সর্বজ্যেষ্ঠ আইনজীবী বিচারপতি টিএইচ খান, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ড. কামাল হোসেন ও ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী বিচারপতি মোহাম্মদ আবদুল ওয়াহাবকে সম্মাননা ক্রেস্ট ও উত্তরীয় দেওয়া হয়।
প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধান বিচারপতির নাম থাকলেও অসুস্থতার কারণে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি।
 অনুষ্ঠানে সংবর্ধিতরা ছাড়াও বক্তব্য রাখেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও সম্পাদক এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন।
 প্রধান বিচারপতি এবং বিচারাধীন বিষয়ে বিরূপ মন্তব্যের মাধ্যমে আদালত অবমাননার দায়ে দুই মন্ত্রীকে করা জরিমানার পূর্ণাঙ্গ রায়ের পর্যবেক্ষণে সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামতের ভিত্তিতে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সংবিধান রক্ষায় তাদের শপথ ভঙ্গ করেছেন বলে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।
গত ২৭ মার্চ খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে সাতদিনের কারাদণ্ড দেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের ৮ বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ। তাদের সাতদিনের মধ্যে জরিমানার টাকা ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতাল ও কিডনি ফাউন্ডেশনকে দিতে বলা হয়। পরে জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন তারা।
এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার (০১ সেপ্টেম্বর) ৫৪ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে।সংক্ষিপ্ত রায়ে আদালত বলেন, মন্তব্যের মাধ্যমে আদালত অবমাননা করেছেন দুই মন্ত্রী। আর পূর্ণাঙ্গ রায়ের পর্যবেক্ষণে প্রধান বিচারপতিসহ পাঁচ বিচারপতি বলেন, সংবিধানের আলোকে আইনের শাসন রক্ষার ক্ষেত্রে বিবাদীরা তাদের শপথের প্রতি দায়িত্বে অবহেলা করেছেন। তারা আইন লঙ্ঘন করেছেন এবং সংবিধান রক্ষা ও সংরক্ষণে তাদের শপথ ভঙ্গ করেছেন।
এ মতামতের পক্ষে অন্য চার বিচারপতি হলেন- বিচারপতি আবদুল ওয়াহ্হাব মিয়া, বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার। এ অংশের রায় লেখেন বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী।
 অন্য তিন বিচারপতি জরিমানার শাস্তির বিষয়ে একমত হলেও দুই মন্ত্রী শপথ ভঙ্গ করেননি বলে রায়ে উল্লেখ করেন। তারা হচ্ছেন- বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি নিজামুল হক। এ অংশের রায় লিখেন বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।
তথ্য সূত্র :-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম