বুধবার ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ || সময়- ৪:৩৮ pm
নারী স্টেশন মাস্টার, তাই দেখতে আসে

ইনফরমেশন ওয়াল্ড নারী নিউজ ডেক্স
চট্টগ্রাম:--- নারী চালাবে বিমান কিংবা জাহাজ। আকাশপথে নিয়ে যাবে দূরদেশ। উত্তাল সমুদ্র পাড়ি দিয়ে পণ্যবাহী জাহাজ নিয়ে যাবে এ-বন্দর থেকে ও-বন্দরে। এক দশক আগেও খুব বেশি মানুষ এটি কল্পনা করতে পারেনি। কিন্তু তা এখন বাস্তবতা। পুরুষের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পিছিয়ে নেই নারীরা। এগিয়ে যাচ্ছে সমান তালে। রাখছে যোগ্যতার স্বাক্ষর। গড়ে তুলছে দৃষ্টান্ত।
নারীরা ওড়াচ্ছেন বিমান। পেশা হিসেবে বেছে নিচ্ছেন রোমাঞ্চকর সমুদ্র যাত্রা। চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন ট্রেন চালানোর। কেবল চালানো নয় এখন ট্রেন পরিচালনার দায়িত্ব পড়েছে নারীদের ওপর। হাসিমুখে গ্রহণ করেছেন সেই চ্যালেঞ্জও। সেই গল্পই শোনালেন সদ্য নিয়োগ পাওয়া ১৯ জন নারী সহকারী স্টেশন মাস্টার।
মঙ্গলবার বিকেলে নগরীর হালিশহরে রেলওয়ে ট্রেনিং একাডেমির মডেল রুমে কথা হয় একদল সহকারী স্টেশন মাস্টারের সঙ্গে। অফিসনির্ভর চাকরি না করে এ ধরনের চ্যালেঞ্জিং পেশায় আসার কারণ জানতে চাইলে তারা বলেন, মেয়েদের এখানে চাকরি করা যাবে, ওখানে করা যাবে না, ওসব পুরোনো ধ্যান-ধারণা। ডিজিটাল যুগের মেয়েরা এসব বিশ্বাস করবে কেন। তারাও চ্যালেঞ্জ নিতে জানে সেটা মানুষ দেখুক।
‘মেয়ে বলে পিছিয়ে থাকবো কেন, সামনের দিকে এগিয়ে যেতে সব ধরনের পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে হবে। আমরাও চ্যালেঞ্জিং জব করতে পারি’- বললেন চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজের থেকে অর্থনীতি বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করা আসমা আক্তার। তার বিশ্বাস এখান থেকেও ভাল করার সুযোগ আছে।
সহকারী স্টেশন মাস্টার পদে চাকরির কথা শুনেও পরিবারের সদস্যরা পক্ষে মত দিয়েছেন বলে জানালেন ঢাকা বিভাগের ময়মনসিংহ জংশন স্টেশনে নিয়োগ পাওয়া লাবনী আক্তার। তিনি বলেন, চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার মানসিক প্রস্তুতি নিয়েই যোগদান করেছি।রেলওয়ে ট্রেনিং একাডেমিতে প্রশিক্ষণরত নারী সহকারী স্টেশন মাস্টাররা
রেলের বিভিন্ন বিভাগে নারী চাকরিজীবী থাকলেও রেল চালক ও স্টেশন মাস্টার পদে ২০০৪ সালের আগে নারীদের দেখা যায়নি। ২০০৪ সালে প্রথম দুইজন সহকারী স্টেশন মাস্টার নিয়োগ দেওয়া হয়। পরের বছর নিয়োগ পান পাঁচজন। কিন্তু তার ১০ বছর পরের ইতিহাস সম্পূর্ণ ভিন্ন। ২০১৫ সালে ৩০০ সহকারী স্টেশন মাস্টার পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।
২০১৬ সালের জুলাই মাসে নিয়োগ পান ২৫৭ জন সহকারী স্টেশন মাস্টার। এরমধ্যে ৩৭ জন নারী রয়েছেন। দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে রেলওয়ে ট্রেনিং একাডেমিতে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন তারা। এরই মধ্যে ১৩৬ জন প্রশিক্ষণ শেষ করে কাজে যোগ দিয়েছেন। দ্বিতীয় গ্রুপে ১১২ জন প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। সেখানে ৩৭ জন নারীও আছেন।
প্রশিক্ষণ একাডেমির সামনে কথা হয় ১৯ নারী স্টেশন মাস্টারের সঙ্গে। তাদের সবার কণ্ঠে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার দৃ‍ঢ় প্রত্যয়, প্রগাঢ় আত্মবিশ্বাস। সামনে এগিয়ে যাওয়ার অদম্য ইচ্ছা। এসময় উপস্থিত ছিলেন একাডেমির সিনিয়র প্রশিক্ষক (পরিবহন) দেবতোষ বড়ুয়া।
তিনি বলেন, এখন সব জায়গাতেই মেয়েরা দক্ষতার প্রমাণ দিচ্ছে। প্রশিক্ষক হিসেবে দেখেছি এখানকার ৩৭ জন নারীই মনোযোগী। পুরনো ধ্যান-ধারণা পেছনে ফেলে সুন্দর আগামীর দিকে এগিয়ে যেতে যান তারা।
একসময় এসব পদে মেয়েদের খুব ভাল চোখে না দেখলেও এখন সাধারণ মানুষ চাইছে- তেমনটাই জানালেন ঢাকা ইডেন কলেজ থেকে রসায়নে স্নাতকোত্তর করা জহুরুন্নেছা। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ব্যক্তিগতভাবে আমি চ্যালেঞ্জ নিতে ভালবাসি। এখন অনেকেই চায় আমরা এসব পদে আসি।রেলওয়ে ট্রেনিং একাডেমিতে প্রশিক্ষণরত নারী সহকারী স্টেশন মাস্টাররা
তার সঙ্গে কণ্ঠ মেলালেন নারগিছ নিহা, নাজমা ইয়াসমিন, কণিকা আক্তার, মাহবুবা মৌসুমি, সাবিনা ইয়াসমিন, নাহিদা আক্তার ও কামরুন্নাহার। তারা বলেন, নারীরা এখন পিছিয়ে নেই। আমরা আধুনিক যুগের মেয়ে, আমরাও পারবো।
রংপুর কারমাইকেল কলেজ থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করেছেন ওয়াহিদা নাসরিন। লালমনিরহাট বিভাগের মহেন্দ্রনগর স্টেশনে দায়িত্ব তার। গতানুগতিক ধারার চাকরিতে না গিয়ে ভিন্ন কিছু করার ইচ্ছে থেকেই সহকারী স্টেশন মাস্টার পদে আসা।
স্টেশনে চাকরির অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে ময়মনসিংহ নান্দিনা স্টেশনে দায়িত্ব পাওয়া আজমিনা জানালেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, বিষয়টা এখন অনেকের কাছেই স্বাভাবিক। তবে নারী স্টেশন মাস্টার হওয়াতে অনেকেই দেখতে আসে।
বাবা চাকরি করেন রেলের পরিবহন বিভাগে। তাই আগে থেকেই অভিজ্ঞতা ছিল। ফলে মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলেন তানজিনা শাহনাজ। হিসাব বিভাগে চাকরির ইচ্ছে ছিল বর্তমানে চট্টগ্রাম স্টেশন ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদের মেয়ে তানজিনার। তবে সহকারী স্টেশন মাস্টার হিসেবে চাকরিতে যোগ দিয়ে ভালই লাগছে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্রী তানজিনার।
তিনি বলেন, ‘অনেকেই বলে এখানে যোগ দিয়েছো কেন। শিফটিং ডিউটি, কেমনে করবে। কিন্তু আমার মনে হয়েছে কঠিন কিছু না। বাবাও আমার পছন্দের ওপর ছেড়ে দিয়েছিলেন।’
তথ্য সূত্র :-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম