বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ || সময়- ৫:৪৯ am
মা ও তিন সন্তানের লাশ উদ্ধারে হত্যা মামলা

ইনফরমেশন ওয়াল্ড অপরাধ নিউজ ডেক্স
চট্টগ্রাম:-----ঢাকার উপকণ্ঠে কামারপাড়ায় ঘরের ভেতরে তিন সন্তানসহ এক নারীর লাশ পাওয়ার ঘটনায় হত্যা মামলা হয়েছে।
নিহত রেহেনা পারভীনের ভাই সামছুল আলম বাদী হয়ে তুরাগ থানায় শুক্রবার রাতে এ হত্যা মামলা দায়ের করেন বলে থানার ওসি মাহবুবে খোদা জানান।
তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মামলার এজাহারে রেহেনার স্বামী মোস্তফা কামাল ও কামালের বোন কুহিনূরের নাম সন্দেহভাজন হিসেবে লেখা হয়েছে। রাতে মামলার পর মোস্তফাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
প্রতিবেশীদের কাছে খবর পেয়ে শুক্রবার ভোররাতে পুলিশ তুরাগ থানা এলাকায় ইজতেমা মাঠের কাছের কামারপাড়ার কালিয়ারটেক এলাকার টিনশেড একটি বাসা থেকে রেহেনা পারভীন (৪০) ও তার তিন সন্তান শান্তা (১৩), শেফা (৮) ও সাদ (১) এর  লাশ উদ্ধার করে।
তিন সন্তানকে হত্যার পর রেহেনা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা পুলিশ ধারণার পাশাপাশি রেহানার স্বামী মোস্তফা কামালেরও ভাষ্য, তার আর্থিক অবস্থা পড়ে যাওয়ায় টানা-পোড়েনের কারণে হতাশা থেকে সন্তানসহ আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন তার স্ত্রী।
তবে শ্বশুর বাড়ির লোকজন সম্পত্তির বিরোধে থেকে রেহেনাকে নিয়মিত জ্বালাতন করতে দাবি করে তার বাড়ির লোকজনের সন্দেহ, তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনই এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।
লাশ উদ্ধারের সময় পুলিশ চারজনের লাশ ঘরের মেঝেতে পেলেও স্থানীয়রা তাদের জানায়, রেহানার লাশটি ঘরে সিলিং ফ্যানে ঝুলছিল, আর মেঝেতে পড়েছিল তিন শিশুর লাশ।
এ ব্যাপারে ঘটনার দিন রেহানার স্বামীর মোস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, রাতে বাসায় ফিরে মাঝের ঘরে বিছানায় তিন সন্তান এবং ভেতরের ঘরে ফ্যানের সঙ্গে তার স্ত্রীকে ঝুলতে দেখেন।এরপর তার চিৎকারে আশপাশের মানুষজন ছুটে এলে রেহেনাকে নামিয়ে মুখে বাতাস দিয়ে বাঁচানোর চেষ্টা করেন।
পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদেও এলাকায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সমিতি ‘যুব কল্যাণ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী কো-অপারেটিভ লিমিটেড’ গড়ে তোলা ব্যবসায়ী কামাল একই কথা বলেছেন জানান জানান তুরাগের ওসি মাহবুবে খোদা।
তিনি বলেন, ‍“(রেহানার) স্বামী শুরুতে যা বলছে, একই কথা বলছে যে, কো-অপারেটিভ অফিস থেকে এসে তার স্ত্রীকে ঝুলন্ত অবস্থায় পায় এবং তাকে নিচে নামিয়ে মুখে ফুঁ দিয়েছিল বাঁচানোর জন্য।”
ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর রেহেনার ভাইয়ের হত্যা মামলায় পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।
চারজনকে পাশাপাশি দাফন
মা ও তিনজনকে কামারপাড়া কবরস্থানে পাশাপাশি দাফন করা হয়েছে।
নিহত রেহেনার খালাতো ভাই মো. নাহিদ বলেন, শুক্রবার রাতে চারজনকে পাশাপাশি দাফন করা হয়।
তথ্য সূত্র --বিডি নিউজ