বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ || সময়- ৩:৫৬ am
চলতি সপ্তাহেই চট্টগ্রাম বন্দরের জাহাজ জট কমে আসবে : বন্দর কর্তৃপক্ষ

ইনফরমেশন ওয়াল্ড বন্দরনগরী  নিউজ ডেক্স
চট্টগ্রাম:----- চট্টগ্রাম, ১৯ জুলাই, ২০১৭ (বাসস) : চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের বহির্নোঙ্গরের বর্তমান জাহাজ জট চলতি সপ্তাহে কমে আসবে বলে বন্দর কর্তৃপক্ষের একজন কর্মকর্তা বাসসকে জানিয়েছেন।
হার্বার মাস্টার মোহাম্মাদ ফরিদ বাসসকে বলেন, বন্দরের বর্তমান জাহাজ জট কমিয়ে আনতে কর্তৃপক্ষ কিছু জরুরি পদক্ষেপ নিযেছে। এরমধ্যে রয়েছে পণ্য খালাসে নোঙ্গরের সময় ও জাহাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা, বিশেষ শিফট চালু এবং বার্থিং শিপ থেকে ২৪ ঘণ্টা কার্গোতে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা করা।
তিনি বলেন, বন্দরে একইসঙ্গে আরো বেশিসংখ্যক জাহাজে পণ্য বোঝাই ও খালাসের লক্ষ্যে নতুন যন্ত্রপাতি স্থাপন ও বিদ্যমান ব্যবস্থার আধুনিকায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
কর্মকর্তা জানান, ইতোমধ্যে তিনটি রাবার টায়ার গেন্ট্রি ক্রেন (আরটিজি) চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছে এবং মধ্য আগস্টে ফর্কলিফটের ৫টি ইউনিট পৌঁছবে। এছাড়া, আরো ১১টি আরটিজি, ৪টি স্ট্রেডল ক্যারিয়ার, ৫টি কন্টেইনার মুভার ও ১টি রেল মাউন্টেড আরএমজি ক্রয় প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। শোর গেন্ট্রি ক্রেনের জন্য ৬টি জাহাজ কেনার দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে।
তিনি বলেন, বিগত কয়েক মাসে বন্দরে পণ্য বোঝাই ও খালাসে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হলেও বহির্নোঙ্গরে কার্গো, কন্টেইনার ও জাহাজের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় সাম্প্রতিক সময়ে জাহাজ জটের সৃষ্টি হয়েছে। তবে এখন বন্দরে প্রতি ঘণ্টায় ১৬ থেকে ১৭ কার্গো হ্যান্ডেলিং হচ্ছে। এতে জট শিগগিরই কেটে যাবে।
গতিশীলতা ও দক্ষতা বাড়াতে ভিশন ২০২১ ও ২০৪১’র আলোকে ৭ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এ্যাডমিরাল এম খালেদ ইকবাল। তিনি বলেন, ২০১৯ সালের মধ্যে পতেঙ্গা বে টার্মিনালের নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (সিসিসিআই) সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, যথাযথ কার্গো ব্যবস্থাপনা, বার্থ টাইম ও লাইটার জাহাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা ও সার্বক্ষণিক পণ্য খালাসের ব্যবস্থায় জাহাজ জট কমে আসবে।
বন্দর কতৃপক্ষের সদস্য মোহাম্মাদ জাফর আলম বলেন, এটা ঠিক যে বহির্নোঙ্গরে অনেক জাহাজ অপেক্ষায় রয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষের একার পক্ষে এর সমাধান করা সম্ভব নয়। এ সমস্যা সমাধানে তিনি বন্দর কর্তৃপক্ষকে সহায়তা করতে কার্গো-ভ্যাসেল ও উপকূলীয় জাহাজের মালিক-শ্রমিকদের প্রতি আহ্বান জানান।